1. paribahanjagot@gmail.com : pjeditor :
  2. jadusoftbd@gmail.com : webadmin :
সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ০৩:২৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের সম্পাদক ওসমান আলীর বিরুদ্ধে গুরুতর অভিযোগ, অপসারণ দাবি বৈশ্বিক বিমান সংস্থাগুলোর মুনাফা হবে তিন হাজার কোটি ডলার উত্তরা মোটর্স বাজারে এনেছে ইসুজুর দুই মডেলের বাস বাংলাদেশীদের জন্য ভ্রমণ ফি কমাল ভুটান পরিবহন চাদাবাজি : সিএনজিচালিত অটোরিকশার স্ট্যান্ড দখল নিয়ে সংঘর্ষে রণক্ষেত্র হবিগঞ্জ নিহত ৩, আহত ৫০ গতিসীমা নিয়ে বিতর্ক : শহরে বাইকের সর্বোচ্চ গতি ৩০ কিলোমিটার, মহাসড়কে ৫০ কর্মীরা গণহারে অসুস্থ, এয়ার ইন্ডিয়া এক্সপ্রেসের ৯০ ফ্লাইট বাতিল মগবাজার রেল গেটে ট্রেনের ধাক্কায় গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের গাড়ি চুরমার নতুন দুটি বিদেশি এয়ারলাইন্সের কার্যক্রম শুরু আগামী মাসে : অক্টোবরে চালু হচ্ছে থার্ড টার্মিনাল চট্টগ্রাম বন্দর দিয়ে ৯ মাসে ৪৩৫৫ কোটি ডলারের পণ্য রফতানি

বাজারে টায়ারের চাহিদা ক্রমশ বাড়ছে

জাগরণ চাকমা
  • আপডেট : মঙ্গলবার, ২৮ জুলাই, ২০২০

অর্থনৈতিক ক্রিয়াকলাপ এবং ধনী ভোক্তাদের প্রসার ঘটিয়ে বাণিজ্যিক ও যাত্রী যানবাহন বিক্রি বাড়ায় বাংলাদেশে মোটরগাড়ি টায়ারের বাজার সমৃদ্ধ হচ্ছে। বাজারের উদ্যোক্তাদের মতে, অটোমোটিভ টায়ারের বাজারের আকার গত বছর সাড়ে চার হাজার কোটি টাকায় পৌঁছে, যা ২০১৬-২০১৭ সালে প্রায় ৪,০০০ কোটি টাকা এবং ২০১৫ সালে ৩,০০০ কোটি টাকা ছিল।

বাণিজ্যিক যানবাহনের টায়ার সেগমেন্টটি বাজারে আয় করেছে ৩৭০০ কোটি টাকা। ২০১৮ সালে এই বিভাগে কমপক্ষে দেড় লাখ পিস টায়ার বিক্রি হয়েছিল।

এছাড়া প্রাইভেট কারে ব্যবহৃত ১ লাখ পিস টায়ার বিক্রি হয়েছিল গত বছর এক হাজার কোটি টাকার মতো। ভারতীয় টায়ার এমআরএফ এর একমাত্র আমদানিকারক ভেলোকসো ট্রেডিং লিমিটেডের জেনারেল ম্যানেজার নজরুল ইসলাম বলেন,” গত ১০ বছর ধরে ক্রমবর্ধমান বাণিজ্যিক যানবাহনের পিছনে চলা এবং অর্থনৈতিক ক্রিয়াকলাপকে বৈচিত্র্যময় করে টায়ার বাজার খুব দ্রুত বৃদ্ধি পাচ্ছে।

বাণিজ্যিক যানবাহন টায়ার সেগমেন্টে, এমআরএফ এর বাজার অংশ ৩০ শতাংশ। অ্যাপোলোর ৫ শতাংশ, বিড়লা ১০ শতাংশ, সিইএটি ৩ শতাংশ, এবং হানুকুক ১ শতাংশ নিয়ন্ত্রণ করে। বাকি ৫১ শতাংশ নন-ব্র্যান্ডের চাইনিজ টায়ার দ্বারা নিয়ন্ত্রিত।

প্রাইভেট কারের টায়ার সেগমেন্টে জাপানি ব্র্যান্ডের যোকোহামা, ব্রিজেস্টোন এবং টয়ো এবং মার্কিন ব্র্যান্ড ডানলপের সম্মিলিত শেয়ার দাঁড়িয়েছে প্রায় 70 শতাংশ। থাই ব্র্যান্ড ম্যাক্সিসিসের ২০শতাংশ শেয়ার, কোরিয়ান ব্র্যান্ড হানুকুক ২ শতাংশ এবং নন-ব্র্যান্ডযুক্ত চাইনিজ টায়াররা বাকি 8 শতাংশ শেয়ারের মালিক।

কোরিয়ান হানকুক টায়ার ব্র্যান্ডের আমদানিকারক এইচএনএসের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ শহিদুল ইসলাম বলেন, প্রাইভেট কার ব্যবহারকারীরা নির্ভরযোগ্যতা এবং অর্থের জন্য মূল্য হিসাবে প্রিমিয়াম মানের টায়ার পছন্দ করেন। নগরীর কারওয়ান বাজারের খুচরা বিক্রেতা দ্য টায়ার অ্যান্ড ব্যাটারি বাজারের পরিচালক মজিবুর রহমান শেখ বলেছেন, জাপানি টায়ার ব্র্যান্ডগুলি গ্রাহকদের মধ্যে জনপ্রিয়। থাই এবং কোরিয়ান টায়ারেরও ভাল চাহিদা রয়েছে।

উত্পাদন সংক্রান্ত ক্ষেত্রে দুটি ধরণের টায়ার রয়েছে : পক্ষপাত এবং রেডিয়াল। এবং বাণিজ্যিক যানবাহনের ৯০ শতাংশ মালিকরা ব্যয় কমিয়ে আনতে বায়াস টায়ার ব্যবহার করেন। তবে বায়াস টায়ারের তুলনায় দীর্ঘায়ুটির জন্য রেডিয়াল টায়ার জনপ্রিয়তা পাচ্ছে বলে ম্যাক্সিসিস টায়ারের আমদানিকারক শায়ান ইন্টারন্যাশনালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আমজাদ খান রাজু জানিয়েছেন। “টায়ারের বাজারের ভবিষ্যত উজ্জ্বল। কারণ বছরে গাড়ির সংখ্যা কমপক্ষে ১০ শতাংশ বাড়ছে,” তিনি বলেন। সূত্র : ডেইলি স্টার।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর
© 2020, All rights reserved By www.paribahanjagot.com
Developed By: JADU SOFT