1. paribahanjagot@gmail.com : pjeditor :
  2. jadusoftbd@gmail.com : webadmin :
মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ১২:৩৬ অপরাহ্ন

বুড়িচংয়ে ব্যস্ততম সড়কের কালভার্ট ভেঙ্গে যাওয়ায় বিপাকে হাজারো মানুষ 

সৌরভ মাহমুদ হারুন
  • আপডেট : সোমবার, ৪ জানুয়ারী, ২০২১

কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার ব্যস্ততম কোরপাই-আবিদপুর সড়কের আবিদপুর এলাকার কালভার্টটি ভেঙ্গে যাওয়ায় প্রতিদিন স্থানীয় কৃষক ও হাজার হাজার মানুষকে চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছে।

সরেজমিন ঘুরে জানা যায়, জেলার বুড়িচং উপজেলার মোকাম ইউনিয়নের কোরপাই-আবিদপুর সড়কটির অবস্থান। ৪ কিলোমিটার দীর্ঘ সড়কটি দিয়ে পার্শ্ববর্তী দেবিদ্বার উপজেলার মোহনপুর ও বরকামতা ইউনিয়নের লোকজনদেরও যাতায়াতের অন্যতম উপায়। এই সড়কের পাশেই বুড়িচংয়ের মোকাম ইউনিয়নের আবিদপুর, মিথলমা, মনঘাটা, কাকিয়ারচর, কোরপাই, দেবিদ্বারের বরকামতা ইউনিয়নের ব্রাহ্মণখাড়া, প্রেমু, ফাগুন্ডা, মোহনপুরের বিহারমন্ডল, ছোটনা, দীঘিরপাড়, শুভপুর, ফুলতলীসহ বেশ কিছু গ্রামের অবস্থান।

অপেক্ষাকৃত কৃষি নির্ভর এই গ্রামগুলোতে বারো মাসই নানা প্রকার শাক-সবজিসহ বিভিন্ন ফসল উৎপাদন হয়। গ্রামগুলোর কাছাকাছিই দেশের অন্যতম বৃহৎ সবজিবাজার নিমসারের অবস্থান। তাই এ সড়কটি ব্যবহার করে এখানকার কৃষকরা তাদের উৎপাদিত ফসল বিক্রির জন্য নিমসার বাজারে নিয়ে যায়। তাছাড়া এই সড়ক দিয়ে প্রতিদিন চাকুরীজীবি, ব্যবসায়ী, শিক্ষার্থীরাসহ হাজার হাজার মানুষ চলাচল করে। বিগত প্রায় ৬/৭ মাস আগে আবিদপুর গ্রামের সার্জেন্ট কাইয়ুমের বাড়ির সামনে থাকা সড়কটির কালভার্টটি ভেঙ্গে গেলে কার্যত যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে এই সড়কে চলাচলকারী বিভিন্ন শ্রেনী-পেশার মানুষের। এতে করে এখানকার কৃষকরা তাদের উৎপাদিত পন্য পরিবহন করতে না পারায় চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

স্থানীয় জসিম উদ্দিন, জহিরুল ইসলাম, কাসেমসহ একাধিক কৃষক জানান, আগে আমরা জমি থেকেই উৎপাদিত ফসল রিক্সা, ভ্যান, ইজিবাইক বা সিএনজি অটোরিক্সায় তুলে সরাসরি নিমসার বাজারে নিয়ে যেতাম। বর্তমানে কালভার্টটি ভাঙ্গা থাকায় দীর্ঘ পথ উৎপাদিত ফসল জমি থেকে মাথায় করে আবিদপুর গ্রামে নিয়ে এসে পরবর্তীতে বিভিন্ন বাহনে করে নিমসার বাজারে নিয়ে আসতে হয়। এতে করে মুজুরী খরচ বেড়ে যাওয়ায় লাভের পরিমানও কমে যাচ্ছে।

আবিদপুর এলাকার আওয়ামীলীগ নেতা মোঃ জামাল উদ্দিন বলেন, কালভার্টটি ভেঙ্গে যাওয়ার পর থেকে এই এলাকার লোকজন চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছে। আমি বিষয়টি স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা প্রকৌশলীকে জানিয়েছি।

বুড়িচং উপজেলা প্রকৌশলী অনুপ বড়ুয়া বলেন, আমি বিষয়টি জেনেছি। যত দ্রুত সম্ভব কালভার্ট মেরামতের ব্যবস্থা করবো।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর
© 2020, All rights reserved By www.paribahanjagot.com
Developed By: JADU SOFT