1. paribahanjagot@gmail.com : pjeditor :
  2. jadusoftbd@gmail.com : webadmin :
শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ০৭:৪৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
বৈশ্বিক বিমান সংস্থাগুলোর মুনাফা হবে তিন হাজার কোটি ডলার উত্তরা মোটর্স বাজারে এনেছে ইসুজুর দুই মডেলের বাস বাংলাদেশীদের জন্য ভ্রমণ ফি কমাল ভুটান পরিবহন চাদাবাজি : সিএনজিচালিত অটোরিকশার স্ট্যান্ড দখল নিয়ে সংঘর্ষে রণক্ষেত্র হবিগঞ্জ নিহত ৩, আহত ৫০ গতিসীমা নিয়ে বিতর্ক : শহরে বাইকের সর্বোচ্চ গতি ৩০ কিলোমিটার, মহাসড়কে ৫০ কর্মীরা গণহারে অসুস্থ, এয়ার ইন্ডিয়া এক্সপ্রেসের ৯০ ফ্লাইট বাতিল মগবাজার রেল গেটে ট্রেনের ধাক্কায় গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের গাড়ি চুরমার নতুন দুটি বিদেশি এয়ারলাইন্সের কার্যক্রম শুরু আগামী মাসে : অক্টোবরে চালু হচ্ছে থার্ড টার্মিনাল চট্টগ্রাম বন্দর দিয়ে ৯ মাসে ৪৩৫৫ কোটি ডলারের পণ্য রফতানি ইউএস বাংলার বহরে যুক্ত হলো দ্বিতীয় এয়ারবাস ৩৩০

শরীয়তপুর-চাঁদপুর নৌপথে মেঘনা সেতু নির্মাণের সম্ভাব্যতা সমীক্ষা চলছে পুরোদমে

পোর্ট এন্ড শিপিং রিপোর্টার
  • আপডেট : বৃহস্পতিবার, ২৬ মে, ২০২২

মেঘনা সেতু নির্মাণের জন্য শরীয়তপুর-চাঁদপুর নৌপথে মেঘনা নদীতে চলছে সেতু নির্মাণের সম্ভাব্যতা যাচাই পরীক্ষা। সেতু নির্মাণের জন্য ১২ স্থানে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। নদীর মরফলজি ও হাইড্রোলজি পরীক্ষার কাজ চলমান। আগামী ডিসেম্বরে সমীক্ষার প্রতিবেদন মন্ত্রণালয়ে জমা দেওয়ার পর সরকার সিদ্ধান্ত নেবে কত কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের সেতু নির্মাণ করা হবে আর এর সম্ভাব্য ব্যয় কতো হবে।
সেতু নির্মাণের জন্য বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষ ২৪৩ কোটি টাকার সেতু নির্মানের সম্ভব্যতা যাচাইয়ের একটি প্রকল্প হাতে নেয় গত বছর জুন মাসে। সাম্ভব্যতা যাচাইয়ের জন্য তিনটি পরামর্শক প্রতিষ্ঠান নিয়োগ দেয় সরকার। দক্ষিণ কোরিয়ার প্রতিষ্ঠান দোহা, স্পেনের প্রতিষ্ঠান তিপশা ও জাপানের প্রতিষ্ঠান নিপ্পন কোয়েকে নিযুক্ত করা হয়েছে।
গত জানুয়ারিতে প্রতিষ্ঠানগুলো মাঠ পর্যায়ে সম্ভব্যতা যাচাইয়ের কাজ শুরু করে। প্রথমে এক মাস ব্যাপী ট্রাফিক সার্ভে করা হয়। ওই পথ দিয়ে কত যানবাহন চলাচল করে, কী ধরনের যানবাহন চলাচল করে। তাতে অর্থনৈতিক প্রভাব কি রকম আছে এ বিষয়গুলো দেখা হচ্ছে। এরপর মেঘনা নদীতে মরফলজি ও হাইড্রোলজি পরীক্ষার কাজ শুরু করা হয়। গত মার্চ থেকে মাটি পরীক্ষার কাজ শুরু করা হয়েছে।
মেঘনা সেতুর সম্ভব্যতা যাচাই প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক মো.লিয়াকত আলী জানান, মেঘনা সেতু নির্মাণের সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের কাজ ধাপে ধাপে করা হচ্ছে। ইতোমধ্যেই কয়েকটি শেষ করা হয়েছে। আরও ধাপ চলমান আছে।
আগস্টের মধ্যে মাঠ পর্যায়ের কাজ শেষ করে ডিসেম্বরে মন্ত্রণালয়ে সব প্রতিবেদন জমা দেওয়া হবে। এরপর ভূমি অধিগ্রহণ পরিকল্পনা, রিসেটেলমেন্ট প্লান, সেতুর এলাইনমেন্ট নির্ধারণ করা হবে। এরপর সরকার সিদ্ধান্ত নেবে কত কিলোমিটার সেতু হবে, এর ব্যয় কত হবে।
মেঘনা নদীর যানবাহন পারাপারের বাহন মূলত ফেরি আর ইঞ্জিন চালিত নৌকা। চর আর মূল নদী মিলে ১৫ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের নদীতেই হবে সেতু।
দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের গুরুত্বপূর্ণ স্থলবন্দর বেনাপোল, ভোমরা, সমুদ্র বন্দর মংলা ও পায়রা বন্দরের সাথে নিয়মিত চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের বিভিন্ন জেলায় পণ্য পরিবহন করা হয়। এই বন্দরগুলোর সাথে দুটি বিভাগের জেলাগুলোর দূরত্ব কমিয়ে যাতায়াত সহজ করার জন্য মেঘনায় সেতু নির্মানের উদ্যোগ নিয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর
© 2020, All rights reserved By www.paribahanjagot.com
Developed By: JADU SOFT